০৪:১১ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ : আজ মুখোমুখি হবে দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারত ও পাকিস্তান

সীমান্তের উত্তেজনা ও রাজনৈতিক বৈরিতার কারণে ভারত-পাকিস্তান প্রায় ১৭ বছর দ্বিপাক্ষিক কোনো সিরিজে মুখোমুখি হচ্ছে না। ফলে এমন মর্যাদাপূর্ণ লড়াই দেখতে ক্রিকেটবিশ্বকে অপেক্ষা করতে হয় আইসিসি কিংবা এশিয়ান ক্রিকেটের কোনো মেগা আসরের দিকে। যুক্তরাষ্ট্র ও ওয়েস্ট ইন্ডিজে চলমান টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ সেই সুযোগটি করে দিয়েছে।

যে অপেক্ষা বিশ্বকাপের সূচি ঘোষণার পর থেকেই শুরু। এমন ইতিহাস, গৌরব ও মর্যাদার ম্যাচে শেষ পর্যন্ত যেই জিতুক; জয়টা যে আসলে ক্রিকেটেরই হয়। যদিও দুই দলের শক্তিমত্তায় বর্তমানে বেশ ফারাক। ভারত আমেরিকান মাটিতে পা রেখেছে টুর্নামেন্ট অন্যতম ফেবারিট হিসেবে, অন্যদিকে আনপ্রেডিক্টেবল পাকিস্তানকে ধরা হচ্ছে ডার্ক হর্স হিসেবে।

দুই দলের মুখোমুখি লড়াইয়ে পাকিস্তানের আধিপত্য থাকলেও, বড় টুর্নামেন্টে বাবর আজমদের কাছে ভারত একটি জুজুর নাম। সংক্ষিপ্ত সংস্করণের প্রথম মেগা আসরে তারা শিরোপা খুইয়েছিল রোহিত শর্মাদের কাছে। যদিও ২০১৭ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির পর ২০২১ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভারতকে হারিয়েছিল পাকিস্তান।

তবে ২০২২ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ এবং ২০২৩ ওয়ানডে বিশ্বকাপে জয় গেছে ভারতীয়দের পকেটে। সর্বশেষ এশিয়া কাপে গ্রুপপর্বে পাকিস্তান জিতলেও, সুপার ফোরে জিতে ভারত ফাইনাল খেলে। এরপর শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে রোহিত-কোহলিদের হাতে এশিয়াসেরার মুকুটও ওঠে।

২০১১ ওয়ানডে বিশ্বকাপে ভারতের কোচ ছিলেন গ্যারি কারস্টেন। তার অধীনেই এবার ভারতের বিপক্ষে খেলতে নামছেন বাবররা। আজকের ম্যাচের পরিকল্পনা জানিয়ে কারস্টেন জানান, ‘এটা বড় ম্যাচ যে সেটা অস্বীকার করার কিছু নেই।

তবে ক্রিকেটকে ক্রিকেটের মতোই দেখা উচিৎ। প্রতিটি খেলায় আপনাকে সেরাটা দিতে হবে। সঠিক জায়গায় বল মারতে হবে, যথেষ্ট রান করতে হবে ও ক্যাচ নিতে হবে। আমরা অবশ্যই আগামীকাল সেটাই করার চেষ্টা করব, যদি আমরা আমাদের সামর্থ্য অনুযায়ী খেলি, তাহলে আমাদের ম্যাচ জেতার ভালো সুযোগ রয়েছে।’

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

জনপ্রিয়

অনির্দিষ্টকালের জন্য দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ : আজ মুখোমুখি হবে দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারত ও পাকিস্তান

প্রকাশের সময় : ০২:৪৪:৫৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ৯ জুন ২০২৪

সীমান্তের উত্তেজনা ও রাজনৈতিক বৈরিতার কারণে ভারত-পাকিস্তান প্রায় ১৭ বছর দ্বিপাক্ষিক কোনো সিরিজে মুখোমুখি হচ্ছে না। ফলে এমন মর্যাদাপূর্ণ লড়াই দেখতে ক্রিকেটবিশ্বকে অপেক্ষা করতে হয় আইসিসি কিংবা এশিয়ান ক্রিকেটের কোনো মেগা আসরের দিকে। যুক্তরাষ্ট্র ও ওয়েস্ট ইন্ডিজে চলমান টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ সেই সুযোগটি করে দিয়েছে।

যে অপেক্ষা বিশ্বকাপের সূচি ঘোষণার পর থেকেই শুরু। এমন ইতিহাস, গৌরব ও মর্যাদার ম্যাচে শেষ পর্যন্ত যেই জিতুক; জয়টা যে আসলে ক্রিকেটেরই হয়। যদিও দুই দলের শক্তিমত্তায় বর্তমানে বেশ ফারাক। ভারত আমেরিকান মাটিতে পা রেখেছে টুর্নামেন্ট অন্যতম ফেবারিট হিসেবে, অন্যদিকে আনপ্রেডিক্টেবল পাকিস্তানকে ধরা হচ্ছে ডার্ক হর্স হিসেবে।

দুই দলের মুখোমুখি লড়াইয়ে পাকিস্তানের আধিপত্য থাকলেও, বড় টুর্নামেন্টে বাবর আজমদের কাছে ভারত একটি জুজুর নাম। সংক্ষিপ্ত সংস্করণের প্রথম মেগা আসরে তারা শিরোপা খুইয়েছিল রোহিত শর্মাদের কাছে। যদিও ২০১৭ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির পর ২০২১ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভারতকে হারিয়েছিল পাকিস্তান।

তবে ২০২২ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ এবং ২০২৩ ওয়ানডে বিশ্বকাপে জয় গেছে ভারতীয়দের পকেটে। সর্বশেষ এশিয়া কাপে গ্রুপপর্বে পাকিস্তান জিতলেও, সুপার ফোরে জিতে ভারত ফাইনাল খেলে। এরপর শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে রোহিত-কোহলিদের হাতে এশিয়াসেরার মুকুটও ওঠে।

২০১১ ওয়ানডে বিশ্বকাপে ভারতের কোচ ছিলেন গ্যারি কারস্টেন। তার অধীনেই এবার ভারতের বিপক্ষে খেলতে নামছেন বাবররা। আজকের ম্যাচের পরিকল্পনা জানিয়ে কারস্টেন জানান, ‘এটা বড় ম্যাচ যে সেটা অস্বীকার করার কিছু নেই।

তবে ক্রিকেটকে ক্রিকেটের মতোই দেখা উচিৎ। প্রতিটি খেলায় আপনাকে সেরাটা দিতে হবে। সঠিক জায়গায় বল মারতে হবে, যথেষ্ট রান করতে হবে ও ক্যাচ নিতে হবে। আমরা অবশ্যই আগামীকাল সেটাই করার চেষ্টা করব, যদি আমরা আমাদের সামর্থ্য অনুযায়ী খেলি, তাহলে আমাদের ম্যাচ জেতার ভালো সুযোগ রয়েছে।’