১০:০৩ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চুয়াডাঙ্গায় পুলিশের পাতা ফাঁদে ধরা পড়ল অজ্ঞানপার্টির ৬ সদস্য

আজ শনিবার (৮ জুন) বেলা ১২টায় চুয়াডাঙ্গা পুলিশ সুপারের সম্মেলন কক্ষে প্রেস বিফ্রিংয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম অ্যান্ড অপস) নাজিম উদ্দিন আল আজাদ এসব তথ্য জানান।

গ্রেপ্তাররা হলেন- বাগেরহাট জেলার শরণখোলা থানার দক্ষিণ রাজাপুর গ্রামের মৃত কাশেম মাঝির ছেলে বাচ্চু মাঝি (৪৮), চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা থানার
দুধপাতিলা গ্রামের মৃত গোলাপ মন্ডলের ছেলে হাশেম আলী (৪৮), দর্শনা থানার ঈশ্বরচন্দ্রপুর গ্রামের মৃত রইচ উদ্দিনের ছেলে মো. সালামত (৫৫), চুয়াডাঙ্গা সদর থানার বোয়ালমারি গ্রামের বিল্লাল হোসেনের ছেলে শাহাবুদ্দিন ওরফে শুকচাঁন (৩০), জীবননগর থানার সন্তোষপুর গ্রামের ইসমাইল হোসেনের ছেলে ইব্রাহিম ওরফে ইব্রা (৫০) ও একই থানার মৃগমারী গ্রামের নওশাদ মন্ডলের ছেলে আব্দুর রাজ্জাক (৪৭)।

এর আগে, বেশ কিছুদিন যাবত চুয়াডাঙ্গার পশুহাটে ও পরিবহনের মধ্যে অজ্ঞানপার্টির খপ্পরে পড়েন কয়েকজন গরু ব্যাপারি। এরমধ্যে একাধিক ব্যাপারী নগত অর্থও খুইয়েছেন। এরপর জেলা পুলিশের টনক নড়ে। জেলার থানাসহ বিভিন্ন ইউনিটের একাধিক টিম অজ্ঞানপার্টির সদস্যদের ধরতে মাঠে নামে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, চুয়াডাঙ্গা জেলায় বৃহৎ ডুগডুগি, শিয়ালমারি পশুর হাটসহ মোট ১১টি পশুর হাট রয়েছে। পবিত্র ঈদুল আজহা অর্থাৎ কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে ডুগডুগি, শিয়ালমারি, আলমডাঙ্গা, সরোজগঞ্জ পশুর হাটগুলো জমজমাট হয়ে ওঠে। পশুর হাটগুলো শুরু হওয়ার সাথে সাথেই প্রায় প্রতি বছরই অজ্ঞান পার্টি, মলম পার্টির প্রতারণাসহ বিভিন্ন ধরণের অপরাধমূলক কার্যক্রমের দৌরাত্ম বেড়ে যায়। এছাড়াও পরিবহনগুলোতেও বাসের যাত্রীবেশী অজ্ঞান পার্টির সদস্যরা টার্গেট করে সাধারণ যাত্রীদের অজ্ঞান করে তাদের কাছ থেকে নগদ টাকাসহ মূল্যবান সামগ্রী ছিনিয়ে নেয়।

চুয়াডাঙ্গা জেলায় গত ১৬ মে ফরিদপুরের ইউনুস শেখ শিয়ালমারি পশুহাটে, ২৩ মে জীবননগর-কালীগঞ্জ সড়কের পশু হাসপাতালের সামনে সানোয়ার হোসেন (৪৫), ৩০ মে আলমডাঙ্গার শমসের আলী শিয়ালমারি হাটে অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়েন। সবশেষ অজ্ঞান পার্টির সদস্যরা গত ৩ জুন ডুগডুগির হাটে নোয়াখালীর জসিম উদ্দিনকে টার্গেট করে চেতনানাশক পুষ করে সর্বস্ব ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টাকালে হাতেনাতে বাগেরহাটের বাচ্চু মাঝি নামের একজন গ্রেপ্তার হয়। এই ঘটনায় দামুড়হুদা থানায় পরদিন একটি মামলা রুজু হয়। এরপর অজ্ঞান পার্টির সদস্যদের ধরতে চুয়াডাঙ্গা জেলা পুলিশের একাধিক টিম কৌশলে ফাঁদ পাতে। সেই ফাঁদে আটকা পড়ে অজ্ঞান পার্টির সক্রিয় ৬ সদস্য।

সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নাজিম উদ্দিন আল আজাদ জানান, এটা একটা সংঘবদ্ধ চক্র। গ্রেপ্তারকৃত আসামিদের বিরুদ্ধে ভিকটিমকে চেতনানাশক প্রয়োগ করে সর্বস্ব ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগে একাধিক মামলা রয়েছে। তদন্তকালে আমরা এই চক্রের বেশকিছু নাম পেয়েছি। তাদের চলমান কার্যক্রম মনিটর করা হচ্ছে। এই চক্রের সকল সদস্যকে আইনের আওতায় আনার জন্য সুষ্ঠু তদন্ত এবং গ্রেপ্তার অভিযান চলছে।

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

জনপ্রিয়

চুয়াডাঙ্গাসহ সারাদেশে ২২৯ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন

চুয়াডাঙ্গায় পুলিশের পাতা ফাঁদে ধরা পড়ল অজ্ঞানপার্টির ৬ সদস্য

প্রকাশের সময় : ০৪:২০:১৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ৮ জুন ২০২৪

আজ শনিবার (৮ জুন) বেলা ১২টায় চুয়াডাঙ্গা পুলিশ সুপারের সম্মেলন কক্ষে প্রেস বিফ্রিংয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম অ্যান্ড অপস) নাজিম উদ্দিন আল আজাদ এসব তথ্য জানান।

গ্রেপ্তাররা হলেন- বাগেরহাট জেলার শরণখোলা থানার দক্ষিণ রাজাপুর গ্রামের মৃত কাশেম মাঝির ছেলে বাচ্চু মাঝি (৪৮), চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা থানার
দুধপাতিলা গ্রামের মৃত গোলাপ মন্ডলের ছেলে হাশেম আলী (৪৮), দর্শনা থানার ঈশ্বরচন্দ্রপুর গ্রামের মৃত রইচ উদ্দিনের ছেলে মো. সালামত (৫৫), চুয়াডাঙ্গা সদর থানার বোয়ালমারি গ্রামের বিল্লাল হোসেনের ছেলে শাহাবুদ্দিন ওরফে শুকচাঁন (৩০), জীবননগর থানার সন্তোষপুর গ্রামের ইসমাইল হোসেনের ছেলে ইব্রাহিম ওরফে ইব্রা (৫০) ও একই থানার মৃগমারী গ্রামের নওশাদ মন্ডলের ছেলে আব্দুর রাজ্জাক (৪৭)।

এর আগে, বেশ কিছুদিন যাবত চুয়াডাঙ্গার পশুহাটে ও পরিবহনের মধ্যে অজ্ঞানপার্টির খপ্পরে পড়েন কয়েকজন গরু ব্যাপারি। এরমধ্যে একাধিক ব্যাপারী নগত অর্থও খুইয়েছেন। এরপর জেলা পুলিশের টনক নড়ে। জেলার থানাসহ বিভিন্ন ইউনিটের একাধিক টিম অজ্ঞানপার্টির সদস্যদের ধরতে মাঠে নামে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, চুয়াডাঙ্গা জেলায় বৃহৎ ডুগডুগি, শিয়ালমারি পশুর হাটসহ মোট ১১টি পশুর হাট রয়েছে। পবিত্র ঈদুল আজহা অর্থাৎ কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে ডুগডুগি, শিয়ালমারি, আলমডাঙ্গা, সরোজগঞ্জ পশুর হাটগুলো জমজমাট হয়ে ওঠে। পশুর হাটগুলো শুরু হওয়ার সাথে সাথেই প্রায় প্রতি বছরই অজ্ঞান পার্টি, মলম পার্টির প্রতারণাসহ বিভিন্ন ধরণের অপরাধমূলক কার্যক্রমের দৌরাত্ম বেড়ে যায়। এছাড়াও পরিবহনগুলোতেও বাসের যাত্রীবেশী অজ্ঞান পার্টির সদস্যরা টার্গেট করে সাধারণ যাত্রীদের অজ্ঞান করে তাদের কাছ থেকে নগদ টাকাসহ মূল্যবান সামগ্রী ছিনিয়ে নেয়।

চুয়াডাঙ্গা জেলায় গত ১৬ মে ফরিদপুরের ইউনুস শেখ শিয়ালমারি পশুহাটে, ২৩ মে জীবননগর-কালীগঞ্জ সড়কের পশু হাসপাতালের সামনে সানোয়ার হোসেন (৪৫), ৩০ মে আলমডাঙ্গার শমসের আলী শিয়ালমারি হাটে অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়েন। সবশেষ অজ্ঞান পার্টির সদস্যরা গত ৩ জুন ডুগডুগির হাটে নোয়াখালীর জসিম উদ্দিনকে টার্গেট করে চেতনানাশক পুষ করে সর্বস্ব ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টাকালে হাতেনাতে বাগেরহাটের বাচ্চু মাঝি নামের একজন গ্রেপ্তার হয়। এই ঘটনায় দামুড়হুদা থানায় পরদিন একটি মামলা রুজু হয়। এরপর অজ্ঞান পার্টির সদস্যদের ধরতে চুয়াডাঙ্গা জেলা পুলিশের একাধিক টিম কৌশলে ফাঁদ পাতে। সেই ফাঁদে আটকা পড়ে অজ্ঞান পার্টির সক্রিয় ৬ সদস্য।

সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নাজিম উদ্দিন আল আজাদ জানান, এটা একটা সংঘবদ্ধ চক্র। গ্রেপ্তারকৃত আসামিদের বিরুদ্ধে ভিকটিমকে চেতনানাশক প্রয়োগ করে সর্বস্ব ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগে একাধিক মামলা রয়েছে। তদন্তকালে আমরা এই চক্রের বেশকিছু নাম পেয়েছি। তাদের চলমান কার্যক্রম মনিটর করা হচ্ছে। এই চক্রের সকল সদস্যকে আইনের আওতায় আনার জন্য সুষ্ঠু তদন্ত এবং গ্রেপ্তার অভিযান চলছে।