০২:৩৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পানি ছাড়াই হাজির ফায়ার সার্ভিস, সত্যতা পেলে ব্যবস্থা নেবে কর্তৃপক্ষ

চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গায় পানের বরজে লাগা আগুন ৩ ঘণ্টা পর নিয়ন্ত্রণে এসেছে। আগুনে প্রায় ৭০ থেকে ৮০ বিঘা জমির পানের বরজ পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।

বুধবার (১ মে) রাত ৮টার দিকে উপজেলার জামজামি ইউনিয়নের শ্রীনগর-নারায়ণপুরে গ্রামের ধাবগাড়ির ফসলি মাঠে এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

এদিকে আলমডাঙ্গা ফায়ার সার্ভিসের কর্মীদের বিরুদ্ধে পানি ছাড়াই ঘটনাস্থলে আসার অভিযোগ তুলেছেন জামজামি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম। তিনি অভিযোগ করে বলেন, আলমডাঙ্গা ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা পানিবাহী গাড়ি আনলেও সেখানে পানি ছিল না। পরে ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডুর ফায়ার সার্ভিসকে খবর দিলে তারা এসে কাজ শুরু করে। যদি আলমডাঙ্গা ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা পানি সঙ্গে নিয়ে আসত তাহলে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কম হতো।

তিনি আরও বলেন, অনুমানিক ধারণা করা হচ্ছে ৬০-৭০ বিঘা জমির পান বরজ পুড়ে গেছে। আগামীকাল (আজ) দুপুরের মধ্যে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের ইউপি সদস্যকে ক্ষয়ক্ষতির তালিকা দিতে বলা হয়েছে। এরপরই সঠিক তথ্য জানা যাবে।

জামজামি ইউনিয়ন পরিষদের ৫নং ইউপি সদস্য আবু মুসা বলেন, কে বা কারা পান বরজে আগুন লাগিয়ে দেয়। এতে প্রায় ৭০-৮০ বিঘা পানের বরজ পুড়ে গেছে।

আলমডাঙ্গা ফায়ার সার্ভিসের লিডার আবুল হাসান মোল্লা বলেন রেডিও চুয়াডাঙ্গাকে বলেন, রাত সাড়ে ১০টার পর আমরা ঘটনাস্থল ত্যাগ করেছি। প্রাথমিক ধারণা করা হচ্ছে ৪০ থেকে ৪৫ বিঘা পানের বরজ পুড়ে গেছে। এতে ৪৫ লাখ টাকার মত ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। পানি না নিয়ে যাওয়ার অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমাদের যেতে দেরি হয়েছে, তবে আমরা পানি নিয়ে গেছি। অভিযোগ সত্য নয়। আশপাশে কোনো পুকুর ছিল না।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চুয়াডাঙ্গা ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক মো. রফিকুজ্জামান রেডিও চুয়াডাঙ্গাকে বলেন, আমার কাছে অভিযোগ এসেছে দেরি করে ঘটনাস্থলে পৌঁছানোর। রাস্তার কাজ চলায় পৌঁছতে দেরি হয়েছে। পানি ছাড়াই যাওয়ার বিষয়টি আমরা গুরুত্বসহকারে তদন্ত করব। অভিযোগের সত্যতা পেলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এএইচ

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

জনপ্রিয়

চুয়াডাঙ্গাসহ সারাদেশে ২২৯ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন

পানি ছাড়াই হাজির ফায়ার সার্ভিস, সত্যতা পেলে ব্যবস্থা নেবে কর্তৃপক্ষ

প্রকাশের সময় : ০৩:১৪:০৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২ মে ২০২৪

চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গায় পানের বরজে লাগা আগুন ৩ ঘণ্টা পর নিয়ন্ত্রণে এসেছে। আগুনে প্রায় ৭০ থেকে ৮০ বিঘা জমির পানের বরজ পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।

বুধবার (১ মে) রাত ৮টার দিকে উপজেলার জামজামি ইউনিয়নের শ্রীনগর-নারায়ণপুরে গ্রামের ধাবগাড়ির ফসলি মাঠে এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

এদিকে আলমডাঙ্গা ফায়ার সার্ভিসের কর্মীদের বিরুদ্ধে পানি ছাড়াই ঘটনাস্থলে আসার অভিযোগ তুলেছেন জামজামি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম। তিনি অভিযোগ করে বলেন, আলমডাঙ্গা ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা পানিবাহী গাড়ি আনলেও সেখানে পানি ছিল না। পরে ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডুর ফায়ার সার্ভিসকে খবর দিলে তারা এসে কাজ শুরু করে। যদি আলমডাঙ্গা ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা পানি সঙ্গে নিয়ে আসত তাহলে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কম হতো।

তিনি আরও বলেন, অনুমানিক ধারণা করা হচ্ছে ৬০-৭০ বিঘা জমির পান বরজ পুড়ে গেছে। আগামীকাল (আজ) দুপুরের মধ্যে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের ইউপি সদস্যকে ক্ষয়ক্ষতির তালিকা দিতে বলা হয়েছে। এরপরই সঠিক তথ্য জানা যাবে।

জামজামি ইউনিয়ন পরিষদের ৫নং ইউপি সদস্য আবু মুসা বলেন, কে বা কারা পান বরজে আগুন লাগিয়ে দেয়। এতে প্রায় ৭০-৮০ বিঘা পানের বরজ পুড়ে গেছে।

আলমডাঙ্গা ফায়ার সার্ভিসের লিডার আবুল হাসান মোল্লা বলেন রেডিও চুয়াডাঙ্গাকে বলেন, রাত সাড়ে ১০টার পর আমরা ঘটনাস্থল ত্যাগ করেছি। প্রাথমিক ধারণা করা হচ্ছে ৪০ থেকে ৪৫ বিঘা পানের বরজ পুড়ে গেছে। এতে ৪৫ লাখ টাকার মত ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। পানি না নিয়ে যাওয়ার অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমাদের যেতে দেরি হয়েছে, তবে আমরা পানি নিয়ে গেছি। অভিযোগ সত্য নয়। আশপাশে কোনো পুকুর ছিল না।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চুয়াডাঙ্গা ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক মো. রফিকুজ্জামান রেডিও চুয়াডাঙ্গাকে বলেন, আমার কাছে অভিযোগ এসেছে দেরি করে ঘটনাস্থলে পৌঁছানোর। রাস্তার কাজ চলায় পৌঁছতে দেরি হয়েছে। পানি ছাড়াই যাওয়ার বিষয়টি আমরা গুরুত্বসহকারে তদন্ত করব। অভিযোগের সত্যতা পেলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এএইচ