০৪:৩০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

জীবননগরে পানি পানের সময় শ্যালোমেশিনের মধ্যে চলে গেল ওড়না, মুহুর্তেই শেষ ছোট্ট মরিয়ম

মরিয়ম খাতুন জীবননগর উপজেলার সীমান্ত ইউনিয়নের যাদবপুর গ্রামের মাঝেরপাড়ার মুদি ব্যবসায়ী হাফিজুর রহমানের মেয়ে। দুই ছেলে-মেয়ের মধ্যে মরিয়ম ছিল বড়। এক মাত্র মেয়েকে হারিয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েছেন বাবা-মা।

স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল কুদ্দুস রেডিও চুয়াডাঙ্গাকে বলেন, পানি পান করার সময় শিশু মরিয়মের গলায় থাকা ওড়না শ্যালোমেশিনের ইঞ্জিনের মধ্যে পেচিয়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যায় মরিয়ম। দুই ভাই বোনের মধ্যে মরিয়ম ছিল বড়। একমাত্র মেয়েকে হারিয়ে পরিবারে নেমে এসেছে শোকের ছায়া।

সীমান্ত ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ ইশাবুল ইসলাম মিল্টন রেডিও চুয়াডাঙ্গাকে বলেন, বাড়ির পাশে বেরো ধান ক্ষেতে শ্যালোমেশিনযোগে পানি (সেচ) দেয়া হচ্ছিল। সেখানে শিশু মরিয়মসহ তার সহপাঠিরা খেলছিল।

এসময় শ্যালোমেশিনের মুখ ঠেকিয়ে পানি পান করার সময় ওড়না শ্যালোমেশিনের মধ্যে ঢুকে গেলে শিশু মরিয়ম কয়েকপাক ঘুরে ছিটকে দূরে গিয়ে পড়ে। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। পরে পরিবারের সদস্যরা মরিয়মকে উদ্ধার করে জীবননগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন।

এ বিষয়ে জানতে জীবননগর থানা পুলিশের পরিদর্শক (ওসি) এস এম জাবীদ হাসানের সরকারি নাম্বারে কল করা হলে তিনি রিসিভ করেননি।

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

জনপ্রিয়

জীবননগরে পানি পানের সময় শ্যালোমেশিনের মধ্যে চলে গেল ওড়না, মুহুর্তেই শেষ ছোট্ট মরিয়ম

প্রকাশের সময় : ০৮:৫৭:০৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩১ মার্চ ২০২৪

মরিয়ম খাতুন জীবননগর উপজেলার সীমান্ত ইউনিয়নের যাদবপুর গ্রামের মাঝেরপাড়ার মুদি ব্যবসায়ী হাফিজুর রহমানের মেয়ে। দুই ছেলে-মেয়ের মধ্যে মরিয়ম ছিল বড়। এক মাত্র মেয়েকে হারিয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েছেন বাবা-মা।

স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল কুদ্দুস রেডিও চুয়াডাঙ্গাকে বলেন, পানি পান করার সময় শিশু মরিয়মের গলায় থাকা ওড়না শ্যালোমেশিনের ইঞ্জিনের মধ্যে পেচিয়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যায় মরিয়ম। দুই ভাই বোনের মধ্যে মরিয়ম ছিল বড়। একমাত্র মেয়েকে হারিয়ে পরিবারে নেমে এসেছে শোকের ছায়া।

সীমান্ত ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ ইশাবুল ইসলাম মিল্টন রেডিও চুয়াডাঙ্গাকে বলেন, বাড়ির পাশে বেরো ধান ক্ষেতে শ্যালোমেশিনযোগে পানি (সেচ) দেয়া হচ্ছিল। সেখানে শিশু মরিয়মসহ তার সহপাঠিরা খেলছিল।

এসময় শ্যালোমেশিনের মুখ ঠেকিয়ে পানি পান করার সময় ওড়না শ্যালোমেশিনের মধ্যে ঢুকে গেলে শিশু মরিয়ম কয়েকপাক ঘুরে ছিটকে দূরে গিয়ে পড়ে। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। পরে পরিবারের সদস্যরা মরিয়মকে উদ্ধার করে জীবননগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন।

এ বিষয়ে জানতে জীবননগর থানা পুলিশের পরিদর্শক (ওসি) এস এম জাবীদ হাসানের সরকারি নাম্বারে কল করা হলে তিনি রিসিভ করেননি।