০৪:০৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আলমডাঙ্গায় ৬ বছরের শিশুকে জোরপূর্বক ধর্ষণ, কিশোর গ্রেফতার

অপরদিকে, রাতেই রক্তাক্ত অবস্থায় শিশুটিকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এর আগে বৃহস্পতিবার (২৩ মে) বিকেলে উপজেলার হারদি ইউনিয়নের ওসমানপুর গ্রামে এ ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার রাতে শিশুটির পিতা বাদি হয়ে ধর্ষকের নাম উল্লেখ করে আলমডাঙ্গা থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। এরপরই পুলিশ অভিযান চালিয়ে কিশোর ধর্ষককে (১৭) গ্রেফতার করে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আলমডাঙ্গা থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) আশিকুল হক রেডিও চুয়াডাঙ্গা এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, বৃহস্পতিবার রাতে ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন ভুক্তভোগী শিশুর পিতা। এরপরই অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত কিশোরকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আজ শুক্রবার আদালতে সোপর্দ করা হবে।

ভুক্তভোগী শিশুটির মা রেডিও চুয়াডাঙ্গাকে বলেন, বৃহস্পতিবার বিকেলে আমার মেয়ের সঙ্গে অভিযুক্ত কিশোরের ছোট বোন খেলছিল। এসময় অভিযুক্ত কিশোর তার বোনকে ঘাষ রাখতে বাড়িতে পাঠাই। এই সুযোগে মাঠে ফাকাস্থানে আমার মেয়ের মুখ চেপে ধরে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। পরে আমার মেয়ে কাঁদতে কাঁদতে বাড়িতে আসলে তাকে জিজ্ঞাসা করলে বিস্তারিত ঘটনা আমাকে জানায়। এরপরই মেয়ের যৌনপথ রক্তাক্ত অবস্থায় দেখতে পেয়ে আমরা দ্রুত চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নিয়ে আসি। সেখান থেকে আলমডাঙ্গা থানায় পাঠানো হয়। মামলা শেষে রাতে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে মেয়েকে। চিকিৎসকরা পরিক্ষা-নিরিক্ষা করবেন বলে জেনেছি।

তিনি আরও বলেন, আমার ছোট মেয়ের এত বড় সর্বনাশ করেছে তাকে আমরা উপযুক্ত শাস্তির দাবি করছি।

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএম) ডা. ফারহানা পলাশ রেডিও চুয়াডাঙ্গাকে বলেন, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর পুলিশের মাধ্যম ছাড়া একটি শিশু ভিকটিমকে তার পরিবারের সদস্যরা নিয়ে এসেছিলেন জরুরি বিভাগে। পুলিশের মাধ্যমে (মামলা-অভিযোগ করে) আসলে আমরা প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্য পরিক্ষা করা হবে।

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

জনপ্রিয়

অনির্দিষ্টকালের জন্য দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা

আলমডাঙ্গায় ৬ বছরের শিশুকে জোরপূর্বক ধর্ষণ, কিশোর গ্রেফতার

প্রকাশের সময় : ১১:৩৮:৫১ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪

অপরদিকে, রাতেই রক্তাক্ত অবস্থায় শিশুটিকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এর আগে বৃহস্পতিবার (২৩ মে) বিকেলে উপজেলার হারদি ইউনিয়নের ওসমানপুর গ্রামে এ ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার রাতে শিশুটির পিতা বাদি হয়ে ধর্ষকের নাম উল্লেখ করে আলমডাঙ্গা থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। এরপরই পুলিশ অভিযান চালিয়ে কিশোর ধর্ষককে (১৭) গ্রেফতার করে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আলমডাঙ্গা থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) আশিকুল হক রেডিও চুয়াডাঙ্গা এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, বৃহস্পতিবার রাতে ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন ভুক্তভোগী শিশুর পিতা। এরপরই অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত কিশোরকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আজ শুক্রবার আদালতে সোপর্দ করা হবে।

ভুক্তভোগী শিশুটির মা রেডিও চুয়াডাঙ্গাকে বলেন, বৃহস্পতিবার বিকেলে আমার মেয়ের সঙ্গে অভিযুক্ত কিশোরের ছোট বোন খেলছিল। এসময় অভিযুক্ত কিশোর তার বোনকে ঘাষ রাখতে বাড়িতে পাঠাই। এই সুযোগে মাঠে ফাকাস্থানে আমার মেয়ের মুখ চেপে ধরে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। পরে আমার মেয়ে কাঁদতে কাঁদতে বাড়িতে আসলে তাকে জিজ্ঞাসা করলে বিস্তারিত ঘটনা আমাকে জানায়। এরপরই মেয়ের যৌনপথ রক্তাক্ত অবস্থায় দেখতে পেয়ে আমরা দ্রুত চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নিয়ে আসি। সেখান থেকে আলমডাঙ্গা থানায় পাঠানো হয়। মামলা শেষে রাতে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে মেয়েকে। চিকিৎসকরা পরিক্ষা-নিরিক্ষা করবেন বলে জেনেছি।

তিনি আরও বলেন, আমার ছোট মেয়ের এত বড় সর্বনাশ করেছে তাকে আমরা উপযুক্ত শাস্তির দাবি করছি।

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএম) ডা. ফারহানা পলাশ রেডিও চুয়াডাঙ্গাকে বলেন, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর পুলিশের মাধ্যম ছাড়া একটি শিশু ভিকটিমকে তার পরিবারের সদস্যরা নিয়ে এসেছিলেন জরুরি বিভাগে। পুলিশের মাধ্যমে (মামলা-অভিযোগ করে) আসলে আমরা প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্য পরিক্ষা করা হবে।