০৪:৫৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চুয়াডাঙ্গায় ট্রেন থেকে উদ্ধার হওয়া অজ্ঞাত বৃদ্ধকে বাঁচানো গেল না

তবে চিকিৎসকের ধারণা, অতিরিক্ত চেতনাশক জাতীয় ওষুধ সেবনের ফলে অজ্ঞাত বৃদ্ধের মৃত্যু হতে পারে।

চুয়াডাঙ্গা রেলওয়ে পুলিশ সূত্রে জানা যায়, রাতে চিলাহাটি থেকে ছেড়ে আসা খুলনাগামী আন্তঃনগর সীমান্ত এক্সপ্রেস ট্রেনের দায়িত্বরা অচেতন অবস্থায় এই অজ্ঞাত বৃদ্ধকে চুয়াডাঙ্গা রেলওয়ে ফাড়ির পুলিশের নিকট হস্তান্তর করেন। পরে তাকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বৃদ্ধটির গায়ে ক্রিম কালারের ফতুয়া এবং ঘিয়ে কালারের চেক লুঙ্গী রয়েছে।

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. আব্দুল কাদের রেডিও চুয়াডাঙ্গাকে বলেন, রাতে রেলওয়ে পুলিশের সদস্যরা অজ্ঞাত এক বৃদ্ধকে জরুরি বিভাগে নিয়ে আসেন। প্রাথমিক চিকিৎসা শুরু করার কিছুক্ষন পরই তিনি মারা যান। অতিরিক্ত চেতনাশক জাতীয় ওষুধ সেবনের ফলে তার মৃত্যু হতে পারে। ধারণা করা হচ্ছে তিনি অজ্ঞাতপার্টির খপ্পরে পড়েছিলেন।

চুয়াডাঙ্গা রেলওয়ে ফাড়ি পুলিশের ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক (এসআই) মাসুদ রানা রেডিও চুয়াডাঙ্গাকে বলেন, সীমান্ত এক্সপ্রেস ট্রেনের দায়িত্বরত স্টাফরা অচেতন অবস্থায় বৃদ্ধকে আমাদের নিকট হন্তান্তর করেন। আমরা চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করি। পরে জানতে পারি তিনি মারা গেছেন।

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

জনপ্রিয়

চুয়াডাঙ্গায় ট্রেন থেকে উদ্ধার হওয়া অজ্ঞাত বৃদ্ধকে বাঁচানো গেল না

প্রকাশের সময় : ১০:০৯:৫৭ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৯ মে ২০২৪

তবে চিকিৎসকের ধারণা, অতিরিক্ত চেতনাশক জাতীয় ওষুধ সেবনের ফলে অজ্ঞাত বৃদ্ধের মৃত্যু হতে পারে।

চুয়াডাঙ্গা রেলওয়ে পুলিশ সূত্রে জানা যায়, রাতে চিলাহাটি থেকে ছেড়ে আসা খুলনাগামী আন্তঃনগর সীমান্ত এক্সপ্রেস ট্রেনের দায়িত্বরা অচেতন অবস্থায় এই অজ্ঞাত বৃদ্ধকে চুয়াডাঙ্গা রেলওয়ে ফাড়ির পুলিশের নিকট হস্তান্তর করেন। পরে তাকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বৃদ্ধটির গায়ে ক্রিম কালারের ফতুয়া এবং ঘিয়ে কালারের চেক লুঙ্গী রয়েছে।

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. আব্দুল কাদের রেডিও চুয়াডাঙ্গাকে বলেন, রাতে রেলওয়ে পুলিশের সদস্যরা অজ্ঞাত এক বৃদ্ধকে জরুরি বিভাগে নিয়ে আসেন। প্রাথমিক চিকিৎসা শুরু করার কিছুক্ষন পরই তিনি মারা যান। অতিরিক্ত চেতনাশক জাতীয় ওষুধ সেবনের ফলে তার মৃত্যু হতে পারে। ধারণা করা হচ্ছে তিনি অজ্ঞাতপার্টির খপ্পরে পড়েছিলেন।

চুয়াডাঙ্গা রেলওয়ে ফাড়ি পুলিশের ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক (এসআই) মাসুদ রানা রেডিও চুয়াডাঙ্গাকে বলেন, সীমান্ত এক্সপ্রেস ট্রেনের দায়িত্বরত স্টাফরা অচেতন অবস্থায় বৃদ্ধকে আমাদের নিকট হন্তান্তর করেন। আমরা চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করি। পরে জানতে পারি তিনি মারা গেছেন।